1. zahirul@bdnews24.eu : বিডি নিউজ24.ইউ ডেস্ক: : বিডি নিউজ24.ইউ ডেস্ক:
আজ সেই ভয়াল ২৯ এপ্রিল ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে লান্ড ভন্ড ছিল দক্ষিণ চট্টগ্রাম - বিডি নিউজ ইউরোপ
Online TV
বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০১:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম
পা‌কিস্তা‌নের টি‌ভি‌তে ই‌ন্ডিয়ার পতাকা:‌ ‌বিব্রত ইমরান খান গ্রিসে আবারও হু হু করে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা: ভাগ্য খুলতে পারে অনিয়মিত অভিবাসীদের ইতালিতে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ালো ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সহজেই ইউরোপে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করুন গ্রীস থেকে পুশব্যাকের মাত্রা ক্রমাগত বাড়ছে আতঙ্কে অভিবাসীরা সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক টি এম ফখরুল এর ঈদ শুভেচ্ছা দেশবাসীকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন -শেখ গোলাপ মিয়া ব্যারিষ্টার হলেন তারেক কন্যা জাইমা রহমান এথেন্সে বাংলা বুটিক হাউজের উদ্বোধন করলেন রাষ্ট্রদূত জসিম উদ্দিন নর্দান বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের মহান বিজয় দিবস উদযাপন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে ৮ বছরের কারাদণ্ড কক্সবাজার সরকারি বিদ্যালয় দুটোর ভর্তি যুদ্ধ ফ্রেন্ডস অব চিলড্রেন কর্তৃক আয়োজিত এথেন্সের খ্রীষ্টমাস বাজারে বাংলাদেশ দূতাবাস ড. মুহাম্মদ ইউনুস কে নিয়ে আসিফ নজরুল এর স্ট্যাটাস বার্সেলোনায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা:)উপলক্ষে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত ওসমানী নগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য শাহ জামাল আহমদ কে সংবর্ধনা প্রদান কক্সবাজারের রুহুল আমিন সিকদার গুরুতর অসুস্থ- দোয়া কামনা পরিবারের পুলিশের বাধায় পন্ড হলো ছাতকের ইসলামী সাংস্কৃতিক সন্ধা স্পেন আওয়ামীলীগের নবগঠিত কমিটির সভাপতি এস আর আই রবিন এবং সাধারন সম্পাদক রিজভী আলম ভাষাসৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার মোতাহের হোসেনের স্ত্রী ইন্তেকাল গ্রীসে যুবদলের ৪১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন দক্ষিণ ছাতক উপজেলা বাস্তবায়নে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আশ্বাস সিরিয়া পুনর্গঠনে যুক্তরাষ্ট্রের বাধা জুলুম থেকে বাঁচার দোয়া বাবার উদ্দেশ্যে ছেলে… সামাজিক ব্যবসা নিয়ে জার্মান পার্লামেন্টের স্পিকার ও ড. ইউনূসের মধ্যে বৈঠক বেশি লম্বা হওয়ায় মিলছে না হোটেল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল: শক্তিশালী হয়ে ধেয়ে আসছে বাংলাদেশের দিকে রাসেল হাওলাদারের দেশে বিনিয়োগে কর্মসংস্থান সৃষ্টির অন্যন্য উদাহরণ জাতীয় তামাকমুক্ত সপ্তাহে রাজশাহীতে মতবিনিময় সভা চাঁদপুর জেলায় পদক্ষেপ বাংলাদেশ-এর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন পদক্ষেপ বাংলাদেশের বিশ বছরে পদার্পণ ইতালি চলতি বৎসর ৩০,৮৫০ জন বিদেশী শ্রমিক নিবে যেখানেই অন্যায় সেখানেই দ্রুত প্রতিরোধ করতে হবে এ্যাড.মশিউর রহমান ঝালকাঠিতে স্বপন কুমার মূখার্জিকে সংবর্ধনা প্রদান ঝালকাঠি সুগন্ধা ও বিষখালী নদীতে ইলিশ ধরা বন্ধ, অভিযান শুরু অপহরণের একমাস পর কলেজ ছাত্রীকে গাজিপুর থেকে উদ্ধার দ্রুত ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়ার আহ্বানঃ লায়লা শাহ্

আজ সেই ভয়াল ২৯ এপ্রিল ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে লান্ড ভন্ড ছিল দক্ষিণ চট্টগ্রাম

  • Update Time : বুধবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২০
  • ২৪৬ Time View

আজ সেই ভয়াল ২৯ এপ্রিল ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে লান্ড ভন্ড ছিল দক্ষিণ চট্টগ্রাম

এস এম ফরিদুল আলম চট্টগ্রাম থেকেঃ

১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিল। বাংলাদেশের বঙ্গোপসাগর উপকূলে এ রাতে আঘাত হেনেছিল মহাপ্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাস। লাশের পর লাশ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল চারদিকে। বিস্তীর্ণ অঞ্চল ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছিল। পরদিন বিশ্ব অবাক হয়ে গিয়েছিল সেইদিনের ধ্বংসলীলা দেখে। কেঁপে উঠেছিল বিবেক। সহায় সম্বল ও স্বজনহারা উপকূলের কিছু মানুষ পেয়েছিলেন নবজন্ম। এত বছর পর কেমন আছেন তারা।
২৫ বছর আগের এই দিনে মহাপ্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের আঘাতে বিলীন হয়ে গিয়েছিল চট্টগ্রাম-কক্সবাজারসহ বিভিন্ন উপকূলীয় এলাকার প্রায় আড়াইশ কিমি বেড়িবাঁধ। বিশেষ করে আমার জন্মস্থান বাঁশখালী উপকূলীয় ৩নং খানখানাবাদ ইউনিয়নসহ অপর ৯টি উপকূলীয় ইউনিয়নের মধ্যে ৭টি ইউনিয়নের বেড়িবাঁধও মাটির সাথে মিশে গিয়েছিল। এখন চলছে ঝড়, বৃষ্টি, ঘূর্ণিঝড় মৌসুম। আবাহওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে এপ্রিল-মে, জুন মাসে একাধিক নিম্নচাপের আশংকার কথা প্রকাশ করেছে। কিন্তু এখনো সম্পূর্ণ অরক্ষিত চট্টগ্রাম, কক্সবাজার উপকূল অঞ্চলসমূহ। বাংলদেশের অন্যতম সমুদ্র বন্দর চট্টগ্রামের বন্দর নগরীর পতেঙ্গা, চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী, আনোয়ারা, সীতাকুন্ড, মিরসরাই, সন্দ্বীপ, কক্সবাজারের পেকুয়া, কুতুবদিয়া, মহেশখালীসহ উপকূলীয় অঞ্চলের লোকজন এখনো রয়েছে ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের আতঙ্কে।
’৯১ সালে এই ভয়াল রাতে ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের ফলে এসব এলাকায় ব্যাপক প্রাণহানী ঘটলেও এখনো সেখানে নির্মিত হয়নি স্থায়ী বেড়িবাঁধ। তবে গত বছরের ১৯ মে বাঁশখালী উপকূলীয় ৬টি ইউনিয়নে ১৪ কিমি বিধ্বস্ত বেড়িবাঁধ সংস্কারের জন্য একনেকের সভায় ২১০ কোটি টাকা পরবর্তী সময়ে তা বর্ধিত করে ২৫৫ কোটি টাকা অর্থ বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে মর্মে দৈনিক পত্রিকা সূত্রে জানতে পারি, তৎজন্য প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। উপকূলবাসী উপর্যুপরি দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই আবারও অমাবস্যা ও পূর্ণিমার জোয়ারের লোনাপানি ঢুকে পড়ছে। বাঁশখালীর বিস্তৃর্ণ উপকূলীয় এলাকা বিশেষ করে প্রেমাশিয়া গ্রাম ও অন্যান্য গ্রামে মৎস্য চাষ ও আউশের ক্ষতিসহ বহু বসতঘরে পানি ঢুকে পড়েছে। বেড়িবাঁধ না থাকায় উপকূলীয় ইউনিয়নগুলোর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে। অপরদিকে উত্তর প্রেমাশিয়ার প্রাক্তন জেলা ও দায়রা জজ ফজলুল করিম সাহেবের বাড়ী সংলগ্ন এলাকাটির হাজার হাজার জনগণকে বিগত ৪১ বছর ধরে ওয়াবদার বেড়িবাঁধের বাইরে রাখায় ঐ এলাকার মানুষ অত্যন্ত ভয়াবহভাবে বঙ্গোপসাগরের লবণাক্ত জোয়ারের পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।


এসব এলাকায় চাষাবাদতো বিগত ৩ যুগের অধিক কাল ধরে হচ্ছেই না। উত্তর প্রেমাশিয়া, দক্ষিণ প্রেমাশিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দুটোসহ একাধিক মাদ্রাসা তিনটি সাইক্লোন সেল্টারসহ, মসজিদ, মন্দির, শ্মশান, কবরস্থান, সরকারি, বেসরকারি অনেক অবকাঠামো নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার পথে। মোদ্দাকথা প্রেমাশিয়া ও পশ্চিম রায়ছটার জনগণ ওয়াপদার আওতায় না থাকাতে বেশি ক্ষতি হচ্ছে। তাই উক্ত বরাদ্দকৃত অর্থের মাধ্যমে ইতোমধ্যে বিধ্বস্ত বেড়িবাঁধের কাজ শুরু না হওয়ায় এলাকাবাসীর খুবই উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠায় আছে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি ইতিবাচক জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। নচেৎ ’৯১ এর পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে বলেও অভিজ্ঞ মহল আশংকা ব্যক্ত করছেন। তাই অবিলম্বে অত্র এলাকার জনগণের জানমাল সম্পদ রক্ষার্থে ওয়াপদার আওতাভুক্ত করে ওয়াপদা বাঁধ নির্মাণ জনস্বার্থে অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। অতীতে লক্ষ করা গেছে বাঁধ নির্মাণ ঘোর বর্ষাকালে উপকূলীয় এলাকায় জোয়ারের পানি ঠেকাতে রিং বাঁধ নির্মাণ, মেরামত, সংস্কার ইত্যাদি নানা নামে প্রতি বছরই নেয়া হয় বিভিন্ন প্রকল্প। কিন্তু এসব প্রকল্পে ঘটে সরকারি বরাদ্দকৃত অর্থ নয় ছয়-এর ঘটনা। নিরীহ উপকূলবাসীর মা-বোনদের জীবনের ভাগ্য নিয়ে চলে নানান খেলা। লুটেরাদের পেটে চলে যায় বরাদ্দকৃত অর্থের সিংহভাগ।


বর্ষা এলে ভেঙ্গে যায় বাঁধ, আবারো নতুন নতুন প্রকল্পের নামে আসে নতুন বরাদ্দ। এভাবে বছরের পর বছর উপকূলীয় বাঁধের কাজের নামে চলে আসছে সরকারি অর্থের অপচয় ও আত্মসাৎ। বাংলাদেশের জাতীয় রাজস্বের শতকরা ৮০ শতাংশ অর্থ যোগানদানকারী বাণিজ্যিক রাজধানী অন্যতম সমুদ্র বন্দর শহর রক্ষা বাঁধ হিসেবে পরিচিত বন্দর নগরীর পতেঙ্গা বেড়িবাঁধটি এখনো স্থায়ী ও টেকসইভাবে নির্মিত হয়নি। ৯১ সালের মহাপ্রলংকারী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে এ বাঁধটি ভেঙ্গে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছিল নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকা, শিল্পকারখানা ও স্থাপনার, বাঁশখালী উপকূলীয় এলাকার বিধ্বস্ত বেড়িবাঁধ বর্ষার পূর্বে সংস্কারের দাবি জানিয়ে এলেও অদ্যাবধি কোন ইতিবাচক সংবাদ আসেনি বলে এলাকাবাসী আতংকগ্রস্ত অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। অপরদিকে প্রেমাশিয়ার কৃতীসন্তান অস্ট্রেলিয়ায় অধ্যাপনায় নিয়োজিত বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. আরিফ মঈনুদ্দীন সিদ্দিকী অতীব দুঃখের সাথে বলেন যে, একটি টেকসই স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণের এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী থাকলেও আজও তা পূরণ হয়নি এবং এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর জরুরি হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।


তবে এখনও স্বজন হারানোর বেদনায় কাতর হয়ে উঠে উপকূলীয় এলাকার মানুষ, অপরদিকে বেড়িবাঁধ নির্মাণের নামে পানি উন্নয়ন বোর্ডের খাতা কলমে একাধিক প্রকল্প রেকর্ড হয়েছে আর সরকারি অর্থের খরচ দেখানো প্রচুর। কিন্তু আদৌ পুরোপুরি অরক্ষিত উপকূলীয় এলাকার লোকজনকে এখনো ঝড়-জলোচ্ছ্বাসের সঙ্গে তাদের চালিয়ে যেতে হয় অস্তিত্ব রক্ষার যুদ্ধ।
লেখক : আজীবন সদস্য, উপকূলীয় উন্নয়ন ফাউন্ডেশন

এই নিউজটি ভালো লাগলে আপনার ফেইসবুক টাইমলাইনে সেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সম্পর্কিত আরো খবর

Copyright © All rights reserved

Developed By BD-Europe IT Zone
Our%20family%20
         
Disclaimer  Advertisement Privacy  About us  Contact us